চুল স্ট্রেইট করার আগে যে বিষয় গুলো অবশ্যই মনে রাখা দরকার

In: Care On: Thursday, April 20, 2017 Hit: 377

চুল সৌন্দর্যের অবিচ্ছদ্য অংশ কিন্তু আমারা চুলের বিভিন্ন ফ্যাশন করতে গিয়ে অনেক সময় চুল রঙ করা থেকে শুরু করে আলাদা ভাবে হিট দিয়ে থাকি। যা অনেক সময় চুলের অপূরনীয় ক্ষতি সাধন করে থাকে। আর আমরা কম বেশি সবাই এখন ঘরে ঘরে হেয়ার স্ট্রেইটনার ব্যবহার করি, কিন্তু এই ইলেক্ট্রনিক্স সামগ্রী ব্যবহার করার আগে যদি কিছু ব্যপারে সাবধানতা অবলম্বন না করি তাহলে চুলের ক্ষতি করে ফেলার সম্ভাবনা কয়েক গুন বেড়ে যায়। তাই যে সমস্ত বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে 

আমাদের দক্ষিন এশিয় মেয়েদের চুল একটু আধটু কোকড়া হয়েই থাকে। আবহাওয়া ধুলা বালি, দুষন ইত্যাদি মিলিয়ে শুষ্ক হয়ে চুল, যা দেখেতে বেশ অগোছালো লাগে। তাই আমারা অনেকেই চুল স্ট্রেইট করিয়ে থাকি, যার ফলে মেয়েদের চুলকে দেখায় মসৃন এবং ঝলমলে। আয়রন স্ট্রেইনার গুলোই এযাবৎ কাল পর্যন্ত ব্যবহার হয়ে আসছিল। কিন্তু এই ধরনের স্ট্রেইনার চুলের অনেক ক্ষতি সাধন করে থাকে। তাই ক্ষতি না করে মসৃণ চুল পেতে ভোক্তাদের জন্য চলে এলো ইলেক্ট্রিক ব্রাশ স্ট্রেইটনার। যা আপনাকে দিবে চুল আচড়ানোর অনুভুতি এবং সাথে সাথে স্ট্রেইট করা চুল। 


চুলে ইলেক্ট্রিক ব্রাশ ব্যবহারের পূর্বে অবশ্যই কিছু ব্যপারে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবেঃ


১। চুল ভাল মত ধুয়ে নেয়াঃ
মাথা খুব ভাল করে শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। তবে যদি মাথার চুল একটু বেশি কোকড়ানো হয় তাহলে ময়েসচার আছে এমন কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে যেন ধোয়ার পর চুলে যেন একটা ঝরঝরে ভাব থাকে। একটা ব্যপারে সবাইকেই উপদেশ দেয়া হচ্ছেঃ চুলে যেন রেটিনল সমৃদ্ধ মাস্ক অথবা বাম ব্যবকরি অথবা গ্রীন টির নির্যাস অথবা ভিটামিন ই বা ভিটামিন বি দিয়ে চুল ধৌত করা আবশ্যক, কেননা এতে করে চুলের ট্রেইটভাবটা অনেক বেশি সময় ধরে থাকে। । 


২। অতিরিক্ত তাপমাত্রা থেকে চুলের সুরক্ষাঃ
কখনই থার্মাল প্রোটেকটিভ পন্য ব্যবহারে যেমনঃ স্প্রে, লোশন বা মোসেজ ইত্যাদি ব্যবহারে অবহেলা করা উচিত না। কারন চুলের জন্য বিভিন্ন ধরনের Protective ব্যবহার করার ফলে আপনার চুলকে ক্ষতি গ্রস্থ হওয়া থেকে বাচাতে পারেন। ভেজা চুলে প্রোটেক্টিভ লুবটি লাগিয়ে রাখুন এবং স্বাবাবিক ভাবে চুলে কে শুকিয়ে নিন। শুকিয়ে যাওয়ার পর আপানার চুল প্রস্তুত হয়ে গেল স্ট্রেটানার ব্যবহার করার জন্য। 

৩। চুল ভাল ভাবে শুকিয়ে নেয়াঃ
অবশ্যই চুলকে ভাল ভাবে শুকিয়ে এবং ভাল মত কম্বিং করে নিতে হবে ব্রাশ স্ট্রেইটনার ব্যবহার করার আগে। এতে করে আপনার চুল মাথার ত্বক পুড়ে যাবার আশঙ্কা থাকবে না। ব্লো হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার করা যাবে না কারন এত করে চুল অতিরিক্ত শুকিয়ে যেতে পারে। 


৪। ভাঙ্গা চুলের আগায় স্ট্রেইটনার ব্যবহার না করাঃ
আপনার যদি চুলের আগা ফেটে যাবার সমস্যা থাকে তাহলে সেখানে স্ট্রেইটনার ব্যবহার না করা আপনার জন্যই ভাল, নতুবা চুল দেখতে অনেক বেশি অগোছালো লাগবে। হেয়ার ড্রেসার এর কাছ থেকে ভেঙ্গে যাওয়া আগা কেটে ফেলতে হবে। এর পর আপনি স্ট্রেইটনার ব্রাশটি অনায়েশেই ব্যবহার করতে পারেন। 


৫। ব্রাশ এর তাপমাত্রা ব্যবহারের দিক নির্দেশনাঃ
ব্রাশটিতে ইলেক্ট্রিসিটিতে প্লাগ ইন করে ২২০ ভল্টেজ এ নিয়ে আসতে হবে। তবে ভোল্টটি যদি আপনার চুলের সুট না করে সেক্ষেত্রে আপনি এডাপ্টারের মাধ্যমে তাপমাত্রা উঠা নামা করাতে পারবেন। তাপমাত্রা উঠা নামা করানো জন্য ব্রাশের গায়ে বাটন এটে দেয়া আছে। এবং আপনার পছন্দের তাপমাত্রা ডিজিট আকারে এলসিডি প্যানেলে সো করবে। যেকোন তাপমাত্রা সেট করার পর তা কার্যকর হতে ৩০ সেকেন্ড সময় লাগবে।

Comments

Leave your comment